1. admin@khoj24bd.com : admin :
  2. tishibly@gmail.com : gungun gungun : gungun gungun
  3. somankhan92@gmail.com : golam mohiuddin : golam mohiuddin
জলকামান থেকে পানি ছিটিয়ে নারিতার রানওয়েতে বিমানকে অভ্যর্থনা - https://khoj24bd.com
শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ০৫:২২ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ
লিবিয়া নিয়ে মুক্তিপণ আদায়কারী নুর মোহাম্মদ গ্রেফতার! জনমনে স্বস্তি পরিবেশবিদ মতিন সৈকত এগ্রিকালচারাল ইম্পর্ট্যান্ট পারসন এআইপি সন্মাননা পেলেন। এটি তার পঞ্চম রাষ্ট্রীয় স্বকৃীতি তজুমদ্দিনে জমি দখলে বাঁধা দেওয়ায় বিধবা নারীসহ ৪ জনকে পিটিয়ে আহত। হাসপাতালে ভর্তি।। দাউদকান্দিতে সুবিধাবঞ্চিত ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ। দাউদকান্দিতে বৃদ্ধাকে হত্যা: ৩ ঘন্টার মধ্যে আসামীকে গ্রেপ্তার দাউদকান্দি পৌরসভার ৩৫ কোটি টাকার বাজেট ঘোষণা চান্দিনায় ডোবায় প্রাণ গেলো ইতালি প্রবাসী শিশুর উত্তরা প্রেসক্লাবের উন্নয়নের নামে আনা অনুদান সহ ছাদের রড চুরি! অভিযুক্ত চারজনের বিরুদ্ধে তুরাগ থানায় অভিযোগ দাউদকান্দির বরকোটা স্কুল এন্ড কলেজের এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের বিদায় ও দোয়া বাংলাদেশ বিশ্বকাপে সেমি বা ফাইনালে খেলার মত করে টিম তৈরী করে নাই

জলকামান থেকে পানি ছিটিয়ে নারিতার রানওয়েতে বিমানকে অভ্যর্থনা

  • Update Time : শনিবার, ২ সেপ্টেম্বর, ২০২৩
  • ৫ Time View

নারিতা, জাপান: দীর্ঘ ১৭ বছর পর নারিতা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের
ট্যাক্সিওয়েতে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ড্রিমলাইনার বোয়িং-৭৮৭ গাঙচিলের অবতরণ করার সময় জল কামান দিয়ে অভ্যর্থনা জানানো হয়।
শনিবার সকাল ৯টায় (স্থানীয় সময়) ঢাকা-নারিতা রুটের বিমানের প্রথম ফ্লাইট বিজি ০৩৭৬ পৌঁছালে জাতীয় পতাকাবাহী বিমানটি টোকিও থেকে ৬০ কিলোমিটার পূর্বে বিমানবন্দরে জলকামানের অভ্যর্থনা দেয়া হয়।
জল কামান অভ্যর্থনা হল এভিয়েশন সেক্টরের একটি ঐতিহ্যবাহী শিষ্টাচার যেখানে বিমানবন্দরগুলো নতুন এয়ারলাইনকে সম্মান দেখানোর জন্য উভয় পাশ থেকে জল কামান দিয়ে জলের স্পাউটিং বিমানটিকে ধুয়ে দিয়ে যে কোনও নতুন এয়ারলাইনকে তার ট্যাক্সিওয়েতে স্বাগত জানায়।
বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী এম. মাহবুব আলীর নেতৃত্বে বিমানের প্রতিনিধি দলকে বিমানবন্দরের লাউঞ্জে স্বাগত জানান নারিতা বিমানবন্দরের কর্মকর্তারা।
লাউঞ্জে এক স্বাগত অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী আশা প্রকাশ করেন যে, জাপানের সাথে বিমানের সরাসরি সংযোগ বাংলাদেশ ও জাপানের মধ্যে বাণিজ্য, পর্যটন ও সাংস্কৃতিক বিনিময়ের নতুন দ্বার উন্মোচন করবে।
তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাম্প্রতিক টোকিও সফরে দুই বন্ধু প্রতীম দেশ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে কৌশলগত অংশীদারিত্বে উন্নীত করার পাশাপাশি সরাসরি বিমান যোগাযোগ বাংলাদেশ ও জাপানের মধ্যে সম্পর্ককে মূল্য দেবে।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘নতুন ফ্লাইটটি বাংলাদেশ ও জাপানের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে আরও জোরদার করবে কারণ সরাসরি সংযোগ দুই দেশের মধ্যে জনগণের মধ্যে যোগাযোগ বাড়াবে।
তিনি আশা প্রকাশ করেন যে, নতুন ফ্লাইটটি বাংলাদেশ-জাপান দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যকে আরও বাড়াবে এবং জাপানি পর্যটকদের বাংলাদেশের আকর্ষণীয় পর্যটন স্পটগুলোতে আকৃষ্ট করবে।
মাহবুব বাংলাদেশী নাগরিকদের পাশাপাশি নেপাল, ভুটান এবং ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যগুলির যাত্রীদের আকর্ষণ করতে নতুন রুটটিকে লাভজনক করার আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
বিমান বাংলাদেশের ম্যানেজিং ডিরেক্টর এবং সিইও শফিউল আজিম বলেন, নেপাল ও কলকাতার যাত্রীদের আকৃষ্ট করতে বিমান ইতোমধ্যেই নারিতা রুটে ব্যাগেজের বেশি ওজন সহ লোভনীয় প্যাকেজ অফার করেছে।
বিমান প্রধান বলেন, জাতীয় পতাকাবাহী সংস্থা কোড শেয়ারিং এর মাধ্যমে জাপান হয়ে অন্যান্য বাহকের সহায়তায় অস্ট্রেলিয়া, যুক্তরাষ্ট্রের পশ্চিম উপকূল এবং কানাডায় যাত্রী নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা করছে।
আজিম বলেন, ‘আমরা অন্যান্য এয়ারলাইনস ইন্টারলিঙ্কিং বা কোড শেয়ারিংয়ের সাথে অনুসন্ধান করছি যাতে আমরা আমাদের যাত্রীদের জাপানের বাইরে ৩৬০ ডিগ্রি এয়ারলাইনের মতো বিভিন্ন রুট অফার করতে পারি।’
তিনি বলেন, বর্তমানে বিমান কোড শেয়ারিংয়ের জন্য জাপান এয়ারলাইন্স লিমিটেড (জেএএল), অল নিপ্পন এয়ারওয়েজ এবং এয়ার কানাডার সাথে কাজ করছে।
কোড শেয়ারিং এর মাধ্যমে বিমান চারটি গন্তব্য-লস অ্যাঙ্গেলস, ভ্যাঙ্কুভার, সিডনি এবং সিউলে পৌঁছানোর কাজ করছে।
কোড শেয়ারিং হল একটি বিপণন ব্যবস্থা যেখানে একটি এয়ারলাইন অন্য এয়ারলাইন দ্বারা পরিচালিত একটি ফ্লাইটে তার মনোনীত কোড রাখে এবং সেই ফ্লাইটের টিকিট বিক্রি করে।
সারা বিশ্বে এয়ারলাইনগুলি তাদের বাজারে উপস্থিতি এবং প্রতিযোগিতামূলক ক্ষমতাকে শক্তিশালী বা প্রসারিত করতে কোড-শেয়ার ব্যবস্থা তৈরি করে চলেছে।
প্রবাসী বাংলাদেশী ছাড়াও প্রায় ৪১ হাজার ভারতীয় এবং ১ লাখ ৪০ হাজার নেপালি নাগরিক জাপানে বসবাস করছেন।
জাপানের বিচার মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী ২০২২ সাল পর্যন্ত জাপানে ২০,৯৫৪ জন বাংলাদেশি বসবাস করছেন।
ড্রিমলাইনার ৭৮৭-৮ এবং ৭৮৭-৯ এয়ারক্রাফট দিয়ে বিমান সাপ্তাহিক তিনটি ফ্লাইট পরিচালনা করবে।
ঢাকা থেকে প্রতি শুক্র, সোম ও বুধবার এবং নারিতা থেকে প্রতি শনি, মঙ্গলবার ও বৃহস্পতিবার ফ্লাইট ছাড়বে।
বর্তমানে জাতীয় পতাকাবাহী সংস্থা এয়ারবাসের সাথে আলোচনা করছে ইউরোপীয় বিমান প্রস্তুতকারকের কাছ থেকে ১০টি ব্র্যান্ড নতুন বিমান কেনার জন্য।
বর্তমানে বিমানের বহরে মোট ২১টি উড়োজাহাজ রয়েছে। এর মধ্যে চারটি বোয়িং ৭৭৭-৩০০ ইআর, চারটি বোয়িং ৭৮৭-৮, দু’টি বোয়িং ৭৮৭-৯, ছয়টি বোয়িং ৭৩৭ এবং পাঁচটি ড্যাশ ৮-৪০০ বিমান।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020 www.khoj24bd.com bangla News web portal.
Theme Customized By BreakingNews